ফেলুদা , পরমব্রত, বাংলাদেশী টিভি সিরিজ

ফেলুদা , পরমব্রত, বাংলাদেশী টিভি সিরিজ নিয়ে বেদম বাত্তেলা হচ্ছে – সেটার  পরিপ্রেক্ষিতেই বলছি — শার্লক হোমস এর রি- ইন্টারপ্রেটেশন  অনেকেই বিবিসি সংস্করণ দেখেছেন : এই সময়ে একই সঙ্গে হোমস-এর  তিন-টি রি- ইন্টারপ্রেটেশন  চলছে  – আমেরিকাতে সিবিএসএ এলিমেন্টারি (যেটা আমার মতে বিবিসি  শার্লক এর থেকে অনেক ভালো – আমার মনে হয় গ্যাটিস আর মোফ্যাট বিবিসি শার্লকের চতুর্থ পর্যায়টায় বিচ্ছিরি রকম ছড়িয়েছেন), আবার রবার্ট ডাউনি জুনিয়র অভিনীত সিনেমা ফ্রাঞ্চাইজি (যেটা হয়তো অন্যগুলোর মতো ভালো নয়, কিন্তু একদম  অখাদ্য কুখাদ্য জাতীয় কিছুও নয় – বেশ একরকম দিবাকর ব্যানার্জীর ব্যোমকেশের মতন).

ভূমিকাটা এই জন্যেই দিলাম যে – এর আগেও, যাবতীয় বিখ্যাত গোয়েন্দাদেরকে নিয়ে রি – ইমাজিনেশন, রি-টেলিং, রি- ইন্টারপ্রেটেশন যাই বলবেন, তা হয়েছে – হোমস, পোয়ারো , মার্পল, স্যাম স্পেড, মারলো, লিসবেথ সালান্ডার মায় আমাদের ব্যোমকেশ – তার মধ্যে কিছু ভালো, কিছু মাঝারি, আর কিছু একদম-ই সাধারণ /  যে পরিচালক ও অভিনেতা এগুলো পরিচালনা / অভিনয় করেছিলেন, সবাই যে ভালো ছিলেন,  তা কিন্তু নয় – কয়েকটা তো রীতিমতো পিন্ডি চটকানোর লেভেলের ।

যেগুলো ভালো ছিল, যেমন গ্রানাডা’র জেরেমি ব্রেট অভিনীত হোমস, সেগুলো বেঁচে আছে- আবার যেগুলো সৎ উদ্দেশ্য সত্ত্বেও খুব একটা দঁড়ায়নি, যেমন  ‘ ইয়ং শার্লক হোমস ‘ , সেগুলো লোকে ভুলে গেছে (আর সেটা বানিয়েছিলেন ব্যারি লেভিনসন  – যিনি রীতিমতো বিখ্যাত, এর আগে এবং পরে  রেইন  ম্যান, বাগসি, ওয়াগ দা ডগ, জাতীয় বিখ্যাত সিনেমা পরিচালনা করেছিলেন)  /  এই রি-টেলিং গুলোর জন্য শার্লক-এর নিজের ঐতিহ্য কিচ্ছু কমে নি, শার্লক হোমস নিজের জায়গায়ই  আছেন, এবং থাকবেন /  বরং বলি কি, এতবার বিভিন্নভাবে চলচ্চিত্রায়িত করা হয়েছে বলেই হয়তো বিশ্বের আরো আরো অনেকের কাছে শার্লক পৌঁছে গেছেন –  সবাই তো আর বই পড়ে না।

আবার অন্যদিকে দেখুন, আমাদের বাঙালিদের মধ্যে সেরা বাঙালি যিনি, তাকে আবার একটি সংগঠন এতদিন ধরে একরকম ভাবে কুক্ষিগত করে রেখেছিলেন , যে এখন তিনি merely a Bengal-based phenomenon  হয়েই রয়ে গেছেন  (or at most in few rarefied intellectual circles outside Bengal) . আর এর থেকে দুঃখের কিই বা হতে পারে – রবীন্দ্রনাথ তো শুধু আমাদের বাঙালিদের ই নন।  মনে রাখবেন, তিনিই বলেছিলেন,  জগতে আনন্দযজ্ঞে আমার নিমন্ত্রণ . আর আমরাই যখন দেখি যে – ভিন দেশি ছেড়ে দিন – একজন মারাঠি, পাঞ্জাবি বা কর্ণাটকি কবিতা প্রেমী , নেরুদা কোট করতে পারেন, রুমি কোট করতে পারেন, ডিকিনসন কোট করতে পারেন,মায় বিক্রম শেঠ বা জিৎ থাইল কোট করতে পারেন – কিন্তু রবীন্দ্রনাথ কোট করতে হলে সেই ‘জন গণ মন’ বা ‘একলা চলো রে ‘ – এটি কী খুব দুঃখের বিষয় নয়? রবীন্দ্রনাথের প্রেমের কবিতা নেরুদার প্রেমের কবিতার থেকে কোন অংশে কম? … এর মধ্যে কিন্তু  মারাঠি, পাঞ্জাবি বা কর্ণাটকি কবিতাপ্রেমীর  খুব বেশি দোষ নেই – সে কিন্তু ভালো যা হাতের কাছে পাবে, তাই পড়বে- রবীন্দ্রনাথ কে তার কাছে পৌঁছে দেয়া হয় নি .

বুদ্ধি বা সৃজনশীলতাতে তো আর আমাদের বাঙালিদের মৌরসীপাট্টা নেই (আর, হেহে, এ তো ঠিক বংশানুক্রমেও চলতে থাকে না) – তাহলে কেন আমরা রি – ইন্টারপ্রিটেশন এর পিঠ চাপড়ে দেব না? একটা ভালো জিনিস তো হচ্ছেই যে ফেলুদা আর একজন ব্যক্তির কুক্ষিগত হয়ে থাকছে না . কালকের সেরা সময়োপযোগী ফেলুদা চলচ্চিত্রায়ন হয়তো আসবে তামিল নাড়ু থেকে, বা জার্মানি থেকে, বা বাংলাদেশের বাঙালিভাইদের কাছ থেকে – সেটাই কি কাম্য নয়?

আর দু – তিনটি মামুলি-টাইপ  রি- টেলিং হলে হবে. তাতে ফেলুদার canon – এর কিস্যু ক্ষতি হবে না. আপনি আপনার গাড়ির ব্যাক গিয়ার্-এ যদি ‘ফুর এলিস’ এর সুর দেন, তাতে বিথোভেন-এর কীই বা এসে যায়?

Advertisements

About Shom

Shom Biswas is a writer from India. @Spinstripe
This entry was posted in Unpublished and tagged , . Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

w

Connecting to %s